ফিলিস্তিন নিয়ে ট্রাম্পের ‘শান্তি চুক্তি’তে ইরানের কড়া প্রতিক্রিয়া

ফিলিস্তিন নিয়ে ট্রাম্পের ‘শান্তি চুক্তি’তে ইরানের কড়া প্রতিক্রিয়া


মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঘোষিত ‘শতাব্দীর সেরা চুক্তি’তে কড়া প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে ইরান। কথিত ওই শান্তি প্রস্তাবকে ‘শতাব্দীর সেরা বিশ্বাসঘাতকতা’ বলে উল্লেখ করেছে দেশটি।

মঙ্গলবার রাতে ডোনাল্ড ট্রাম্পের পক্ষ থেকে ওই একতরফা আপস চুক্তি উপস্থাপনের পরই ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাইয়্যেদ আব্বাস মুসাভি এক প্রতিক্রিয়ায় এসব কথা বলেন। ফিলিস্তিনিদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের চাপিয়ে দেয়া এই লজ্জাজনক শান্তি পরিকল্পনা ব্যর্থ হতে বাধ্য বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ফিলিস্তিনি জনগণকে ইসরাইলসহ গোটা ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডের প্রকৃত মালিক বলে উল্লেখ করেন সাইয়্যেদ মুসাভি। খবর ইরনার।

তিনি বলেন, ফিলিস্তিনি ভূমি জবরদখল করে অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। কাজেই সেখানকার সংকট সমাধানের একমাত্র উপায় ফিলিস্তিনের প্রকৃত অধিবাসী মুসলমান, ইহুদি ও খ্রিস্টানদের মধ্যে গণভোটের ব্যবস্থা করা যাতে তারা নিজের ভাগ্য নির্ধারণ করতে পারে।

বিশ্বের বিভিন্ন স্থান থেকে ধরে আনা অবৈধ ইহুদি অভিবাসীদেরকে এই গণভোটের বাইরে রাখতে হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ফিলিস্তিন ও আল-কুদসকে ইরান মুসলিম বিশ্বের এক নম্বর সমস্যা হিসেবে আখ্যায়িত করেন ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এই মুখপাত্র।

তিনি বলেন, দুঃখজনকভাবে কিছু মুসলিম দেশ ফিলিস্তিনি জনগণের অধিকার সম্পূর্ণ উপেক্ষা করার এই পরিকল্পনা মেনে নিয়েছে।

এদিকে মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠায় ‘শতাব্দীর সেরা চুক্তি’ নামের যে প্রস্তাব দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, তাকে সারাবিশ্বের দুঃস্বপ্ন বলে আখ্যায়িত করেছেন ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ।

তিনি বলেন, এটি দেউলিয়াত্বে-জর্জরিত একজন আবাসন ব্যবসায়ীর প্রকল্প। ফিলিস্তিনির জন্য তিনি সারাবিশ্বের মুসলমানদের জেগে ওঠারও আহ্বান জানিয়েছেন।





Source link